Responsive Ad Slot

সর্বশেষ

latest

স্কুল শিক্ষার্থী নিয়ে পালালেন স্বামী:এক বছরের শিশু কন্যা নিয়ে হুমকির মুখে স্ত্রী রনি

সোমবার, ১৬ নভেম্বর, ২০২০

/ by আরিফুল হাসান

স্টাফ রিপোর্টারঃ

উত্তর চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে ঘটেছে এক হৃদয়বিদারক ঘটনা।এক বছরের শিশু কন্যা ও স্ত্রীকে ফেলে প্রতিবেশী এক যুবতীকে(মরিয়ম আক্তার জেরিন) নিয়ে পালালেন স্বামী মোঃ আনোয়ার হোসেন পাবেল (২৩)।সে নোয়াখালী জেলার কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার সাপরাশীহাট বসির হাটের বাসিন্দা বলে জানা যায়।স্বামী হারিয়ে অক্ষম হয়ে পড়েছেন স্ত্রী রনি (২১)। চরম বিপাকে দিন অতিবাহিত  করছেন তিনি।এদিকে অবুঝ শিশু ও তার মা রনি অর্ধাহারে অনাহারে দিন কাটাচ্ছেন। একদিকে স্বামী হারিয়ে অসহায়ত্ব জিবন যাচ্ছে তার অন্যদিকে বাড়ির মালিক তাকে একের পর এক হুমকি দিয়ে আসছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।এই বিষয়ে স্ত্রী রনি আক্তার ৯ নভেম্বর (২০২০) সীতাকুণ্ড মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

সীতাকুণ্ড মডেল থানার অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, আমি একজন গৃহিণী।বিগত ২০১৮ সালে ১ নং বিবাদী মোঃ আনোয়ার হোসেন পাবেল (২৩) সঙ্গে আমার বিয়ে হয়। বর্তমানে আমার এক কন্যা সন্তান রয়েছে যার বয়স ১৩ মাস। আমার স্বামী একজন চাকুরীজীবী।২ নং বিবাদী মোহছনা বেগমের (৩১) বাড়িতে বিগত ৭/৮ মাস ভাড়া বাসায় বসবাস করে আসতেছি।এতে ২নং বিবাদীনী মোহছনা বেগমের ভাড়া বাসায় থাকা কালীন ২ নং বিবাদীনী ও ৩ নং বিবাদীনী মরিয়ম আক্তার জেরিনের প্ররোচনায় বিগত ২৭/১০/২০২০ সকাল ১০:৩০ দিকে আমার স্বামীকে নিয়ে অজ্ঞাত স্থানে হারিয়ে যায়। এরপর চারদিক ও আত্বীয় স্বজনের বাড়িতে সহ খোঁজাখুঁজি করে কোথাও পাওয়া যায়নি। অতঃপর টানা ৩ দিন মোবাইল নাম্বারে(০১৮৫৯৮৪৯১৩৭) ফোন দিলেও সে ধরেনি।তারপর সে (০১৮৫৯৮৪৯১৩৭) নাম্বার থেকে ফোন ধরার পর জানায় যে, মেয়েটি সহ তার সাথে আছে।তারা আর আসবেনা।এতে সে ফোনে ২নং বিবাদীনী মোহছনা বেগমের নিয়মিত যোগাযোগ করে এবং আমাকে ভাড়াটিয়া ঘর থেকে আমাকে বের করে দেওয়ার বায়তারা করছে। বর্তমানে বাড়ির মালিক মোহছনা বেগম ও তার স্বামী মোঃ বাবু আমাকে প্রায় অত্যাচার নির্যাতন করে চলেছে।২নং বিবাদী আমাকে উল্টা পাল্টা হুমকি ধমকি দিয়ে বলতে থাকে যে তুই চক্রান্ত করে তুর স্বামীকে দিয়ে আমার মেয়েকে ভাড়িয়েছিস। আমার মেয়েকে উদ্ধার করে আন তা না হলে তোকে আমাদের বাড়ি থেকে বের হতে দেয়া হবে না।আমি এইসব বিষয়ে প্রতিবাদ করতে গেলে ২নং বিবাদী আমাকে প্রাণনাশের হুমকি প্রদান করে।

এই বিষয়ে ২নং বিবাদী বাড়ির মালিকের মুঠোফোনে বক্তব্য নিতে চাইলে তারা পরের দিন তাদের বাড়িতে এসে সরাসরি বক্তব্য নেয়ার কথা জানান।পরের দিন সন্ধ্যায় সাংবাদিক উপজেলার কদম রসুল এলাকায় গিয়ে তাকে কল দিলে সে সরাসরি দেখা করেননি।বিবাদী দেখা না করে উক্ত বিষয়ে  স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা জসিম চৌধুরীর সঙ্গে কথা বলার জন্য বলে। হুমকি ধমকি বিষয়ে জসিম চৌধুরীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, রনি আক্তার কে কোন হুমকি ধমকি নির্যাতন করা হয়নি। রনি যদি ভাড়া ঘর থেকে বের হতে চাই তাহলে তাকে বকেয়া ভাড়া দিয়ে ঘরের জিনিসপত্র নিয়ে বেরুতে পারবে।পরের দিন জসিম চৌধুরী বলেছেন দশ হাজার টাকার বকেয়া ভাড়ার বদলে ৬ হাজার টাকা দিয়ে সে তার জিনিসপত্র নিয়ে যেতে পারবে।এই সময়ে নেতা জসিম চৌধুরী গতবার তার বেকারীর ছবি তোলায় এক সাংবাদিকের ক্যামেরা কেড়ে নিয়েছিলেন বলে কাহিনী শুনান। এবং বলেন, সীতাকুণ্ড প্রেস ক্লাব অনুমোদন ছাড়া সে সাংবাদিক এসে তার বেকারীর ছবি তোলায় পরে তাকে ক্ষমা চাইতে হয়েছে বলে জানান। আওয়ামী লীগ নেতা জসিম চৌধুরীর হঠাৎ কোন কারণ ছাড়াই এমন উদ্ভট কাহিনী শুনান।

কোন মন্তব্য নেই

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি সময়েরদাবি ডট কমকে জানাতে ই-মেইল করুন- news@shomoyerdabi.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
সময়ের দাবি
© সময়ের দাবি (২০১৯-২০২০)
made with Antor Mittro